শেরপুরের শ্রীবরদীতে গৃহকর্মীকে নির্যাতনকারী গৃহকত্রী জেলে, রিমান্ড চাইবে পুলিশ

শেরপুরের শ্রীবরদীতে গৃহকত্রীর নির্মম নির্যাতনের শিকার শিশু গৃহকর্মী সাদিয়া ওরফে ফেলি কিছুটা সুস্থ হয়ে উঠেছে। এদিকে গ্রেপ্তারকৃত গৃহকত্রী রাবেয়া আক্তার ঝুমুরের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।
শুক্রবার মধ্যরাতে ৯৯৯ থেকে ফোন পেয়ে শ্রীবরদী উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আহসান হাবিব শাকিলের বাড়ি থেকে গুরুতর আহত ও অসুস্থ অবস্থায় ১০ বছরের শিশু গৃহকর্মী সাদিয়া ওরয়ে ফেলিকে উদ্ধার করে শ্রীবরদী থানা পুলিশ। এ সময় নির্যাতনের দায়ে গৃহকত্রী রাবেয়া আক্তার ঝুমুরকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
শ্রীবরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রুহুল আমিন তালুকদার এনটিভিকে জানান, গ্রেপ্তারকৃত ঝুমুরকে আদালতে প্রেরণ করা হলে আদালত তার জামিন না মঞ্জুর করে কারগারে প্রেরণ করেছেন। পুলিশের পক্ষ থেকে ঝুমুর শ্বাসকষ্টজনিত রোগ থাকায় রিমান্ড চাওয়া হয়নি। সে সুস্থ হলেই আদালতের মাধ্যমে তাকে রিমান্ড চাওয়া হবে।
ওসি রুহুল আমিন তালুকদার আরো জানান, এই মামলায় আসামী একজনই। গৃহকর্মী ফেলির বক্তব্য অনুযায়ী রাবেয়া আক্তার ঝুমুর তাকে প্রতিদিনই মারধোর করতো। ঘটনার দিন তার মাথায় ও যৌনাঙ্গে আঘাত করে গৃহকত্রী ঝুমুর। ফলে সে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে।
শেরপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আমিনুল ইসলাম জানান, বিষয়টি দেখছে পুলিশ। এ ব্যাপারে কোন প্রকার ছাড় দেয়া হবে না।
উল্লেখ্য সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আশরাফ হোসেন খোকার ছেলে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আহসান হাবিব শাকিলের পৌরসভাস্থ বীথি টাওয়ারের ৬ তলার ফ্ল্যাটে গৃহকর্মী হিসাবে কাজ করতো দরিদ্র কৃষক সাইফুল ইসলামের মেয়ে সাদিয়া ওরফে ফেলি।

 

SHARE