শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে মানববন্ধন শেষে পাল্টা-পাল্টি বিবৃতি

শেরপুর জেলার ঝিনাইগাতী উপজেলার আবাসিক প্রকৌশলী বিদ্যুৎ অফিসের গাফিলতি,দূর্নীতি, অসৌজন্যমূলক আচড়ণ ও মিটার না দেখে ভূতড়ে বিদ্যুৎ বিল প্রদান নিয়ে ৩ই ফেব্রয়ারি ঝিনাইগাতীর জিরো পয়েন্টে উপজেলা জাসদের আয়োজনে এক মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয় এ বিষয় নিয়ে পাল্টা-পাল্টি বিবৃতি পাওয়া গেছে । তার সূত্র ধরে ঝিনাইগাতী আবাসিক প্রকৌশলী রুকনুজ্জামান এক বিবৃতি প্রদান করে উল্লেখ করেন উপজেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক এ,কে,এম সামেদুল হকের ২টি মিটারের বিপরিতে ১ লাখ টাকার বিল বকেয়া রয়েছে এ নিয়ে অনেক তদবির এসেছে । তাকে বার বার নোটিশ প্রদান করা হয়েছে তা গ্রহণ না করে খারাপ আচড়ণ করেছেন বলে বিবৃতিতে প্রকাশ করেন । জাসদ সাধারণ সম্পাদক এ,কে,এম সামেদুল হক পাল্টা বিবৃতিতে প্রকাশ করেছেন জনস্বার্থে আমরা মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছি । বিদ্যুৎ অফিসের অবহেলায় এই উপজেলার মানুষ দির্ঘদিন থেকে হয়রানি হয়ে আসছে তা আন্দলোণের মাধ্যমে বহিপ্রকাশ হয়েছে । আমার নিকট যে বিদ্যুৎ বিল সরকার পাওনা রয়েছে তার কিস্তি করে আমি ব্যাংকে জমা দিতেছি এটা ভূতরে বিদ্যুৎ বিল বলে ব্যাখ্যা করেন । আমি গ্রাহক হিসাবে আমার নিকট বিল থাকতেই পারে সেটা আইন মাতোবেক আমি দিতে বাধ্য থাকিবো । আমি রাজনীতি করি জনগণের জন্যে জনস্বার্থে তাদের অনিয়ম তুলে ধরে এর প্রতিকার চেয়েছি । তাদের অপকর্ম ডাকার জন্যে আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ তুলেছে তা গ্রহণযোগ্য নহে । সচেতনমহল মনে করছেন বিদ্যুৎ অফিসের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ ও জাসদ সম্পাদকের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ তদন্ত করে থলের বিড়াল বাহির করার জন্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়ে বিদ্যুৎ গ্রাহকের সমস্যা সমাধানে কাজ করার জন্যে আহবান রাখেন । এ ব্যাপারে উভয়ের সাথে যোগাযোগ করা হলে যার যার জায়গা থেকে পাল্টাপাল্টি বিবৃতির কথা শিকার করে বলেন আমাদের বিবৃতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক ও পত্রপত্রিকায় প্রকাশ হয়েছে ।

SHARE