লিভারপুলকে হারিয়ে সেমিতে এক পা রিয়ালের

২০১৮ সালের ফাইনালে হারের চাপা কষ্ট নিয়ে মাঠে নেমেছিল লিভারপুল। তবে প্রতিশোধ নেয়ার সুপ্ত বাসনা পূরণ হলো না ইয়ুর্গেন ক্লপের। আলফ্রেডো ডি স্টেফানোতে তাদের পুরনো ক্ষত আবার জাগিয়ে তুললো রিয়াল মাদ্রিদ। মঙ্গলবার রাতে চ্যাম্পিয়নস লীগে কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে অল রেডদের ৩-১ গোলের বড় ব্যবধানে হারায় জিনেদিন  জিদানের শিষ্যরা। ভিনিসিয়াস জুনিয়রের জোড়া গোল এবং মার্কো অ্যাসেনসিও’র এক গোলে সেমি ফাইনালের পথে এগিয়ে রইলো লস ব্ল্যাঙ্কোসরা। লিভারপুলের পক্ষে একমাত্র গোলটি করেন মোহাম্মদ সালাহ।
এদিন ম্যাচে নামার কয়েক ঘণ্টা আগে সেন্ট্রাল ডিফেন্ডার রাফায়েল ভারানের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে। চোটের কারণে সার্জিও রামোস আগেই ছিটকে গিয়েছিলেন। প্রথম একাদশের দুই সেন্ট্রাল ডিফেন্ডারকে হারিয়ে চিন্তার ভাঁজ পড়ে জিদানের কপালে।

মূল দুই সেন্ট্রাল ডিফেন্ডারকে ছাড়া খেলতে নামা রিয়ালের রক্ষণভাগকে প্রথমার্ধে কোনো পরীক্ষায়ই ফেলতে পারেনি লিভারপুল। উল্টো তাদের ভঙ্গুর রক্ষণে শুরু থেকেই চাপ বাড়ায় স্বাগতিকরা।
ম্যাচের প্রথম ১৫ মিনিটে করিম বেনজেমা ও ভিনিসিয়াস জুনিয়রের দুটি আক্রমণ ব্যর্থ হয়। ২৭তম মিনিটে টনি ক্রুসের লম্বা ক্রস বুক দিয়ে নামিয়ে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে দক্ষতার সঙ্গে লক্ষ্যভেদ করেন ভিনিসিয়াস। রক্ষণের  ভুলে নয় মিনিটের ব্যবধানে দ্বিতীয় গোল হজম করে লিভারপুল। টনি ক্রুসের লম্বা উঁচু করে বাড়ানো বল হেডে ক্লিয়ার করতে গিয়ে অনিয়ন্ত্রিতভাবে নিজেদের ডি-বক্সে বাড়ান ট্রেন্ট আলেকজান্ডার আর্নল্ড। সুযোগ বুঝে ছুটে গিয়ে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন মার্কো অ্যাসেনসিও।
বিরতি থেকে ফিরেই গোল করতে মরিয়া হয়ে ওঠে লিভারপুল। ৫১তম মিনিটে দিয়োগো জোতার পাস থেকে মূল্যবান অ্যাওয়ে গোল করেন মোহাম্মদ সালাহ।
৬৫তম মিনিটে নিজের দ্বিতীয় গোল করেন ভিনিসিউস। ডান দিক থেকে লুকা মডরিচের পাস পেনাল্টি স্পটের কাছে পেয়ে স্কোরলাইন ৩-১ করেন এই ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার।
ফিরমিনো, শাকিরিদের নামিয়েও এরপর আর ব্যবধান কমাতে পারেনি রেডস।
আগামী ১৪ই এপ্রিল ফিরতি পর্বের ম্যাচে অ্যানফিল্ডে রিয়াল মাদ্রিদকে আতিথেয়তা দেবে লিভারপুল। অ্যাওয়ে গোলের সুবিধা কাজে লাগিয়ে  ঘরের মাঠে ঘুরে দাঁড়ানোর লক্ষ্যে মাঠে নামবে প্রিমিয়ার লীগ চ্যাম্পিয়নরা।

SHARE