মিস ওয়ার্ল্ডের লাবণী ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে

মিস ওয়ার্ল্ডে বাংলাদেশ সুন্দরী প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে ফাইনাল অবধি গিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু চূড়ান্ত পর্বে এক ইংরেজি শব্দ ‘উইশ’-এর মানে না বোঝায় ব্যাপক সমালোচনার মুখেই পড়েছিলেন। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকেও ব্যাপক ট্রলের শিকার হন তিনি। সেই আফরিন লাবণীর কথাই বলছি।
ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হওয়ার সুবাদে গতকাল ঘোষিত বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির পূর্ণাঙ্গ তালিকায় উঠে এসেছে তার নাম। কমিটিতে উপ-সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদটি দেয়া হয়েছে মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশে অংশ নেয়া আলোচিত আফরিন লাবণীকে।

সর্বশেষ মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ সুন্দরী প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন লাবণী। চূড়ান্ত পর্ব পর্যন্ত গিয়ে পৌঁছেছিলেন এই শিক্ষার্থী। তবে চূড়ান্ত পর্বে বিচারক ইমির এক প্রশ্নের জবাব দিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচিত ও ট্রলড হয়েছিলেন তিনি। তাকে নিয়ে হাস্যরসে চলতে থাকে অন্তর্জালে। টিকটক ভিডিও বানানো হয় সেই সেগমেন্ট নিয়ে।

সেই অনুষ্ঠানে তাকে বিচারক প্রশ্ন করেছিলেন, ‘তোমাকে যদি তিনটি উইশ করতে বলা হয়, সে উইশগুলো কী হবে?’ এমন প্রশ্নে লাবণী জানিয়েছিলেন, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সি-বিচ কক্সবাজার, সুন্দরবন এবং পাহাড়-পর্বতকে তিনি উইশ করতে চান। লাবণীর এমন উত্তরে ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়।’ ছাত্ররাজনীতিতে বেশ সক্রিয় লাবনী। এর আগে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন।

তিনি বর্তমানে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিবিএ (স্নাতক) সম্পন্ন করে বর্তমানে এমবিএতে অধ্যয়নরত। এদিকে কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হওয়ায় বেশ উচ্ছ্বসিত মডেল আফরিন লাবণী। একটি গণমাধ্যমকে নিজের এই উচ্ছ্বাস প্রকাশে তিনি বলেন, ‘আমার অনেক বড় স্বপ্নপূরণ হয়েছে। এই ঐতিহ্যবাহী সংগঠনে দায়িত্ব পেয়ে আমি নিজেকে ধন্য মনে করছি। কেন্দ্রীয় কমিটিতে জায়গা পেয়ে আমি ভীষণ আনন্দিত। দল আমার পরিশ্রমের মূল্য দিয়েছে।’