পান বিক্রি শেষ কবে : ঝিনাইগাতী এক যুবকের

শেরপুর জেলার ঝিনাইগাতী উপজেলার বনকালি গ্রামের মৃত আলী হোসেনের ছেলে লিটন মিয়া(২৮) যুবকের ফেরি করে পান বিক্রি শেষ হবে কবে এমন প্রশ্ন ঘোরপাক খাচ্ছে সাধারণ মানুষের মনে । লিটন মিয়া অসহায় দরিদ্র পরিবারে জন্ম গ্রহণ করে ছোট বেলায় তার বাবাকে হারিয়ে মায়ের সাথে ঢাকায় মিরপুরে মানুষ হতে থাকে । এক সময় রাস্তা পারাপারের সময় এক ঘাতক মটরসাইকেল তাকে চাপা দিলে তার ডান হাতটি ভেঙ্গে চুরমার হয়ে যায় । অসহায় মা মানুষের নিকট থেকে সাহায্য নিয়ে তার চিকিৎসা করে ভালোর দিকে নিয়ে আসলে তার ডান হাতটি শেষ পর্যন্ত পঙ্গুত্ব হয়ে পড়ে । সেই হাত দিয়ে কোন কাজকর্ম করতে না পেরে অবস হাতটি নিয়ে জীবন জীবিকা নির্বাহ করতে থাকে । কোভিড-১৯ করোনা ভারাসের কারণে ঢাকা থেকে মা সহ গ্রামের বাড়িতে এসে পানের পাত্রটি গলায় ঝুলিয়ে বাজারে ফেরি করে পান বিক্রি করতে থাকে । সারাদিন ঘুরেফিরে ৪শ থেকে ৫শ টাকার পান বিক্রি করে মহাজনকে দিয়ে মা/বোন/স্ত্রী সহ জীবিকা নির্বাহ করে আসছে । ১২ বছর থেকে সে এ পেশায় নিয়োজিত থেকে ঢাকাতে সে এ পেশাই করেছে । এখন ফেরি করে পান বিক্রির প্রচলন নেই বললেই চলে । সকাল থেকে রাত পর্যন্ত সে ঝিনাইগাতীতে পান বিক্রি করে থাকে । সামাজিক বেষ্ঠনীর মাধ্যমে তাকে কোন সাহায্য সহযোগিতার হাত বাড়ায়নি কেউ । সে ঢাকায় অবস্থান কালে একটি ভাতার কার্ড হয়েছে । ঝিনাইগাতীতে তার কোন ব্যবস্থা হয়নি বলে জানা গেছে । এলাকাবাসী শিক্ষক মোনায়েম হোসেন বলেন ছেলেটির অনেক কষ্ট হচ্ছে কোন ভাতার কার্ডের ব্যবস্থা হলে ভালো হতো । লিটন মিয়া জানায় আমার সপ্ন ছোট বেলায় ঘাতক মটরসাইকেলের ধাক্কায় কেড়ে নিয়েছে । আমি ঝিনাইগাতী থেকে এখনও সরকারের বরাদ্ধ কিছু পাইনি । বুকে কষ্ট নিয়ে ফেরি করে পান বিক্রি করে যা উপার্জন হয় তা দিয়ে সংসার চালাই । একজন ভাই রয়েছে সে আমাদের দেখে না । সরকার ও জনপ্রতিনিধিরা আমার দিকে তাকাইলে একটু মুক্তি পেতাম । হাতটিতে কোন শক্তি পায় না বলে অন্য কাজ করতে পারি না ।

SHARE