ঝিনাইগাতীতে প্রচুর কাঁঠাল ধরেছে গাছে, খুশি গাছের মালিকরা

 

শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার পাহাড়ি এলাকাগুলোর গাছে এবার বিপুল পরিমান কাঁঠাল ধরেছে। আমাদের জাতীয় এই ফলে ভরে গেছে ঝিনাইগাতীর গাছগুলো। ঝিনাইগাতীতে কাঁঠাল গাছ পাওয়া যাবে না এমন বাড়ি খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। এবার কাঁঠালের ব্যাপক ফলন সম্ভাবনা খুশি হয়ে উঠেছে গাছের মালিকরা।

কাঁঠাল চাষে আগ্রহী কৃষকরা বাড়ির উঠানে ও চারদিকের ফাঁকা জায়গায় কাঠাঁলের গাছ রোপন করে থাকে। আবার অনেক চাষী বাণিজ্যিক ভাবে কাঠাঁলের বাগান করে রেখেছে যা থেকে আর্থিক যোগান হচ্ছে সংসারের কাজে। এখানকার কাঠাঁল খেতে মিষ্টি ও সুস্বাদু। এই উপজেলার চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন জায়গায় এই মৌসুমি ফল রপ্তানি করা হয়ে থাকে।
এই জাতীয় ফলটি আর কিছুদিন পরেই বাজারজাত হবে। যে কৃষক এই জাতীয় ফল আগে বাজারজাত করবে সে আর্থিকভাবে ব্যাপক লাভবান হয়। পরবর্তীতে আমদানী বেড়ে গেলে বাজারে সঠিক মুল্য পাওয়া যায়না।

কাঁঠাল চাষি শিহাব ও আনিছ জানান, কাঁঠাল আমাদের পারিবারিক চাহিদা মিটিয়ে বাজারে বিক্রি করে থাকি। এবার আমরা আর্থিকভাবে গত বারের চেয়ে লাভবান হব। এবার আমাদের গাছে দ্বিগুন কাঁঠাল ধরেছে।

স্থানীয় কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর সুত্রে জানা যায়, এই উপজেলায় কাঁঠাল চাষের উপযোগী ব্যাপক জায়গা রয়েছে । কাঁঠাল চাষে খরচ খুবই কম তাই বানিজ্যিক ভাবে অনেক কৃষক কাঁঠালের বাগান করে আর্থিক ভাবে লাভবান হচ্ছে।